মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র

কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র,

ভবানীপুর ইউপি কমপ্লেক্স ভবন ১ম তলা,

শেরপুর, বগুড়া।

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

### এখানে কি কি সেবা দেওয়া হয়ঃ-

১। কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে গবাদি পশুর জাত উন্নয়ন করা হয়।

২। কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে গবাদি পশুর অধিক দুধ ও মাংস উৎপাদন করা হয় ।

৩। কৃষক ভাইদের উন্নত জাতের ঘাস চাষ বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া হয়।

৪। গবাদি পশুকে মোটা-তাজাকরণ বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া হয়।

৫। গবাদি পশুকে কৃমি নাশক ঔষধ খাওয়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়।

৬। হাঁস-মুরগী পালন ও খামার স্থাপনের জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়।

৭। গবাদি পশুর প্রাথমিক চিকিৎসা ও পরামর্শ দেওয়া হয়।

৮। গবাদি পশুর কৃত্রিম প্রজনন সম্পর্কে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা হয়।

 

ক্রমিক নং

সেবা সমূহ

সেবা গ্রহণকারী

সেবা প্রদানে সময়সীমা

মমত্মব্য

 

(ক) কেন্দ্রে পালিত ষাঁড় হতে সিমেন সংগ্রহ সংরক্ষণ ও বিভিন্ন

উপকেন্দ্র/পয়েন্টে বিতরণ।

(খ) তরল ও গভীর হিমায়িত সিমেন সংগ্রহ ও সংরক্ষণ ও বিভিন্ন

উপকেন্দ্র/পয়েন্টে বিতরণ।

কৃষক

খামারী

সকাল ৯.০০ টা

হতে

বিকাল ৫.০০ টা

 

 

জেলা কেন্দ্রে আগত গাভী/বকনা কৃত্রিম প্রজননের ব্যবস্থা গ্রহণ।

-ঐ-

-ঐ-

 

ক) তরল সিমেন।

-ঐ-

-ঐ-

১৫/-

খ) গভীর হিমায়িত সেমেনের মূল্য।

-ঐ-

-ঐ-

৩০/-

 

ক) তরল সিমেন।

অধিদপ্তর বহিঃভুত

সংস্থাসমূহ

-ঐ-

১৫/-

খ) গভীর হিমায়িত সেমেনের মূল্য।

-ঐ-

-ঐ-

৪০/-

গ) উপকরনাদির মূল্য।

-ঐ-

-ঐ-

ক্রয় মূল্যে

প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করা।

কৃষক ও খামারী

-ঐ-

বিনা মূল্যে

কৃত্রিম প্রজনন উপকেন্দ্র/পয়েন্ট পরিদর্শন কালে জনসাধারনের

সমস্যা শুনা ও পরামর্শ প্রদান।

-ঐ-

-ঐ-

বিনা মূল্যে

 

ক্রমিক নং

সেবা সমূহ

সেবা গ্রহণকারী

সেবা প্রদানে সময়সীমা

মমত্মব্য

 

(ক) কেন্দ্রে পালিত ষাঁড় হতে সিমেন সংগ্রহ সংরক্ষণ ও বিভিন্ন

উপকেন্দ্র/পয়েন্টে বিতরণ।

(খ) তরল ও গভীর হিমায়িত সিমেন সংগ্রহ ও সংরক্ষণ ও বিভিন্ন

উপকেন্দ্র/পয়েন্টে বিতরণ।

কৃষক

খামারী

সকাল ৯.০০ টা

হতে

বিকাল ৫.০০ টা

 

 

জেলা কেন্দ্রে আগত গাভী/বকনা কৃত্রিম প্রজননের ব্যবস্থা গ্রহণ।

-ঐ-

-ঐ-

 

ক) তরল সিমেন।

-ঐ-

-ঐ-

১৫/-

খ) গভীর হিমায়িত সেমেনের মূল্য।

-ঐ-

-ঐ-

৩০/-

 

ক) তরল সিমেন।

অধিদপ্তর বহিঃভুত

সংস্থাসমূহ

-ঐ-

১৫/-

খ) গভীর হিমায়িত সেমেনের মূল্য।

-ঐ-

-ঐ-

৪০/-

গ) উপকরনাদির মূল্য।

-ঐ-

-ঐ-

ক্রয় মূল্যে

প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করা।

কৃষক ও খামারী

-ঐ-

বিনা মূল্যে

কৃত্রিম প্রজনন উপকেন্দ্র/পয়েন্ট পরিদর্শন কালে জনসাধারনের

সমস্যা শুনা ও পরামর্শ প্রদান।

-ঐ-

-ঐ-

বিনা মূল্যে

ছবি নাম মোবাইল

ছবি নাম মোবাইল

ছবি নাম মোবাইল

 

গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প সমূহ

নাম ও সার সংক্ষেপ (যদি থাকে)ঃ আলাদা পৃষ্ঠায় সংযুক্ত করুন

১। ব্রীডআপগ্রেডেশন থ্রু প্রজেনী টেষ্ট প্রকল্প।

২। কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম সম্প্রসারন ও ভ্রুন স্থানামত্মর প্রযুক্তি বাসত্মবায়ন প্রকল্প।

 

১। ব্রীডআপগ্রেডেশন থ্রু প্রজেনী টেষ্ট প্রকল্প।

 

সার সংক্ষেপ ঃ- ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশে সারা দেশ ব্যাপী কৃত্রিম প্রজনন সম্প্রসারণ কার্যক্রম শুরু হয় ও জনপ্রিয়তা লাভ করে।

ফলে বিগত ২৫ বছরে রিপুল সংখ্যক (প্রায় ২৫ লক্ষাধিক উৎপাদক্ষম ক্রস ব্রীড গাভী তৈরী হয়। ক্রস ব্রীডিং এর ফলে বিগত ২৫ বছরে গবাদি পশুর জাত উন্নয়নের মাধ্যমে দুধ ও মাংসের উৎপাদন যথেষ্ট বৃদ্বি পেলেও এই ক্ষমতা পরবর্তীতে বিজ্ঞান সম্মত প্রজনন ব্যবস্থা ও যথাযথ সিলেকশন ও কালিং পদ্ধতির অভাবে শংকর জাতের গবাদি পশুর মধ্যে সেজেটিক কারণেই কিছু অবক্ষয় ঘটে চলেছে। যার দরুণ উৎপাদন না বেড়ে বরং কমে আসছে। ক্রস ব্রীডিং এর ফলে এক দিকে যেমনঃ শংকর জাত গবাদির সংখ্যা বৃদ্ধি তথা উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে অনিয়ন্ত্রিত ও অতিরিক্ত ব্লাড লেভেল এবং ইনব্রীডিং ইত্যাদি কারণে উৎপাদন ক্ষমতা আশানুরূপভাবে বাড়ানো সম্ভব হয়নি বা টেকসই জাত তৈরী করাও সম্ভব হয়নি এবং উৎপাদনে বিরূপ প্রতিক্রিয়াও লক্ষ করা যাচ্ছে। যেমন F1 প্রথম জেনারেশনে ৫০% ফ্রিজিয়ান ব্লাড লেভেলে অনেক গাভী ১৫ থেকে ২০ লিটার দুধ দিচ্ছে কিন্তু পরবর্তী জেনারেশনে (F2/F3) ও তার প্রজেনী হতে দুধ পাওয়া যাচ্ছে ৮ থেকে ১০ লিটার বা আরো কম। তাছাড়া দৈহিক বৃদ্ধি কম এবং বাচ্চা দানের ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে। এই দোষগুলো দূরীভূত করার জন্য সুপিরিয়র ষাঁড় ও গাভী নির্বাচন করে তাদের মধ্যে প্লান মিটিং পদ্ধতি অবলম্বন না করলে অদূর ভবিষ্যৎ-এ গবাদি পশুর জাত উন্নয়ন ও উৎপাদন বৃদ্ধি করা বা ধরে রাখা সম্ভব হবে না।

এ ছাড়া বিগত ২৫ বৎসরে যে সমসত্ম শংকর জাতের অধিক উৎপাদক্ষম গবাদি পশু তৈরী হয়েছে তাদের অদ্যবধি কোন গুনগত মানের পরীক্ষা (Qualitative performance test)করা হয়নি তাই প্রকৃতপক্ষে এই পদ্ধতির (Cross bred)মাধ্যমে গবাদি পশুর কতখানি উৎপাদন ও পূনঃ উৎপাদন বৃদ্ধি হয়েছে এবং বর্তমানে তার অবস্থান কি তাও জানা সম্ভব হয়নি। এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রজেনী টেষ্ট করে তা জানা  সম্ভব হবে।

কার্যক্রম / কর্মপদ্ধতিঃ

(1)    ক্যান্ডিডেট বুল (ষাঁড়) নির্বাচন।

(2)    প্রজননের জন্য গাভী / বকনা নির্বাচন।

(3)   পরিকল্পিত প্রজনন (প্লান মেটিং)।

(4)    প্রজেনী তথ্য সংগ্রহ।

(5)    মিল্ক রেকর্ডিং।

(6)   ব্যবহ্র্ত ষাঁড়ের উপযোগীতা মূল্যায়ন।

(7)    প্রজনন পাল নির্বাচন।

পরিকল্পিত প্রজনন পদ্ধতি ( Plan mating schedule) t

Mating Plan

Candidate Bull

Insemination

Superior Recipient Cow-300

60% Pregnant

Pregnant-180

                  ↓ 10% Loss

Calving-162

                        ↓ Sex ratio 50%

∕     

                      81 Bull calf                                                                81 Daughter calf

                             ↓                                                                       

       If the sire Proved  as Proven Bull                                      Loss Daughter calf 15%

                            ↓                                                                              ↓

     Collection of Top  10 Bull  Calf   

                            ↓                                                                              ↓

Select 1-2Candidate Bull for Future ONBS                                        

                                                   Adult progeny Heifer 68

                                                    ↓

                                                       Insemination by selected Bull

                                                                             ↓      Loss 10%

                                                      Calving 60 cows

                                                                        ↓  Loss 10%

                                                               Milk recording of 54 Cows &

                                                       analysis For Proven Bull.

২। কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম সম্প্রসারন ও ভ্রুন স্থানামত্মর প্রযুক্তি বাসত্মবায়ন প্রকল্প।

সার সংক্ষেপঃ- কৃষি প্রধান বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রানিসম্পদের গুরুত্ব অপরিসীম। আমাদের দেশে Indigenous-non-descriptive  গাভীর দুধ অত্যমত্ম কম (গড় ১ থেকে ২ লিটার প্রতিদিন) এবং অন্যান্য পূনঃ প্রজনন গুনাবলীও নিম্নমানের। এই অনুন্নত গবাদী পশুর জাত উন্নয়নের লক্ষ্যে বিগত ১৯৫৮ সালে সর্ব প্রথম এদেশে (তদানিমত্মন পূর্ব পাকিসত্মান) কয়েকটি নির্দিষ্ট এলাকায় গবাদি পশুর কৃত্রিম প্রজনন কার্যক্রম শুরু হলেও ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশে সারা দেশ ব্যাপী কৃত্রিম প্রজনন সম্প্রসারণ কার্যক্রম শুরু হয় ও জনপ্রিয়তা লাভ করে। এই প্রকল্প হাতে নেয়ার পর তাদের উৎপাদন ও প্রজনন গুনাবলী উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন অধিক উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন ফ্রিজিয়ান,

জার্সি, হারিয়ানা ও শাহিওয়াল জাতের ষাঁড়ের বীজ দ্বারা কৃত্রিম প্রজনন কার্কক্রম শুরু হয়। এই ক্রস ব্রিডিং এর কারণে হেটারোসিসের ফলে (F1) জেনারেশনে এ দুধ ও মাংস উৎপাদন আশানুরূপ ভাবে বৃদ্ধি পায় সাথে পূনঃ প্রজনন উৎপাদন গুনাগুনের উন্নতি ঘটে।

কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্র,

ভবানীপুর ইউপি কমপ্লেক্স ভবন ১ম তলা,

শেরপুর, বগুড়া।